কোনো কালে একা হয়নি’ক জয়ী পুরুষের তরবারি, প্রেরণা দিয়েছে, শক্তি দিয়েছে বিজয় লক্ষী নারী।

0
320
এই চরণটি বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জন্য যেনো শতভাগ যথার্থ।
গত ৮ আগস্ট বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুুুজিবের ৯৩ তম জন্মদিন উপলক্ষে রেডিও সৈকতের বিশেষ আলাপচারিতা অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আবছার এবং শরমিন সিদ্দীকা লিমা, বিভাগীয় প্রধান বাংলা বিভাগ, কক্সবাজার সিটি কলেজ।
নুরুল আবছার বলেন- আমরা জাতি হসেবে ভীষণ দূর্ভাগ্যবান বলেই বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবকে তাঁর আজীবন নেপথ্য যুদ্ধের যথাযোগ্য মর্যাদা দিতে পারিনি। তিনি আজীবন মনস্তাত্বিক এবং পারিবারিক যুদ্ধের নেতৃত্ব দিয়েছেন। বেগম মুজিব বঙ্গবন্ধুকে রাজনৈতিক সহচর্য দিয়েছেন, আন্দেলনের খরচ জোগাতে আত্নীয়-স্বজনের কাছে ধারদেনা করেছেন, নিজের স্বর্ণালঙ্কার বিক্রি করেছেন। বঙ্গবন্ধু যাতে সমগ্র জাতিকে মুক্ত করার জন্য নিজেকে উৎসর্গ করেন, তার জন্যেই বঙ্গমাতা পরিবারের বাকিসব দায়িত্ব স্বেচ্ছায় নিজ কাঁধে তুলে নিয়েছিলেন। বঙ্গমাতা তাঁর ভেতর থেকে এই অসীম ত্যাগের পৃষ্ঠপোষকতা যদি না করতেন, বঙ্গবন্ধুর পক্ষে বঙ্গবন্ধু হওয়া সম্ভব হতো না।
শরমিন সিদ্দীকা লিমা বলেন- একজন বঙ্গমাতা তিনি, রেনু থেকে রমনী, সেই তিনিই ফার্স্ট লেডি আবার তিনি’ই মহিয়সী। বঙ্গমাতা নিজেই বিন্দু বিন্দু করে নিজেকে গড়ে তুলেছেন। তিনি আরও বলেন, বঙ্গমাতা তিনি কেবল একজন নারী’তে সীমাবদ্ধ থাকেননি, বাবা-মা দুজন হয়ে তিনি সংসারের হাল টেনে ধরেছেন। সেরকম বেগম মুজিব যদি ঘরে ঘরে গড়ে তোলা যায় তবে, নারী হয়ে উঠবে ”অনন্য”।
Spread the love

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here