গরমে হাসপাতালে বাড়ছে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা

0
150

স্বাস্থ্যই সকল সুখের মুল। স্বাস্থ্য ভালো না থাকলে মন ভালো থাকে না। কেননা শরীর মন এক অন্যের পরিপূরক। তাই শরীর এবং মন দুটোকেই ভালো রাখা একান্ত জরুরী। গ্রীষ্মের তাপদাহ বাড়ার সাথে সাথে বৃদ্ধি পাচ্ছে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা । হাসপাতাল গুলোতে যেন পা ফেলার কোন জায়গা নেই।
উদরাময় গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সংক্রমনের একটি উপসর্গ। এর কারণ হলো ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস আর পরজীবী। এই উদরাময় রোগে প্রতি বছর পাচঁ বছরের কম বয়সের প্রায় ৫ লক্ষ শিশুর মৃত্যু হয়। সারা বিশ্বে এটি শিশু মৃত্যুর দ্বিতীয় বৃহত্তম কারণ । প্রতিদিন এই উদরাময় রোগে ২০০০ শিশুর মৃত্যু হয় যা ম্যালেরিয়া, হাম, এ আই ডি এ এস রোগে মোট শিশু মৃত্যুর চেয়েও বেশি। তীব্র উদরাময় কয়েকদিন থেকে কয়েক সপ্তাহ পর্যন্ত থাকতে পারে। এই রোগের ফলে দেহের তরল পর্দাথ নির্গত হয়ে জল বিয়োজন হয় এবং সঠিক সময়ে চিকিৎসা না করলে মৃত্যুও হতে পারে।
কক্সবাজার সদর হাসপাতালের ডাক্তার জেসমিন জানান, ব্যাকটেরিয়া ,ভাইরাস থেকে ডায়রিয়া হতে পারে । সব পাতলা পায়খানা ডায়রিয়ার অন্তভ’ক্ত নয়। সারাদিন যদি তিনবারের বেশি পায়খানা হয তাহলেই সেটিকে ডায়রিয়া বলে ধরে নেওয়া যেতে পারে । প্রশ্রাব বন্ধ হয়ে গেলে ,জ¦র বেশি থাকলে অবশ্যই হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন । গরমের কারণেও ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা বাড়ছে বলে তিনি জানান ।
ডায়রিয়া রোগের লক্ষণ
১. পেটের পেশীর সংকোচন
২. পেট ব্যাথা,পেট ফোলা
৩. জ¦র, বমি বমি ভাব
৪. হঠাৎ মলের বেগ আসা
৫. শরীর দূর্বল হয়ে যাওয়া।
৬. ঘনঘন পিপাসা পাওয়া
৭. একটানা ৩ঘন্টা বা তার বেশী সময় ধওে প্রশ্রাব না হওয়া।
৮. মুখ শুষ্ক দেখানো।
যদি মলে রক্তের উপস্থিতি দেখা যায়, ক্রমাগত বমি করে, ১০২ডিগ্রি জ¦র হয় সাথে সাথে হাসপাতালে নেওয়ার ব্যবস্থা করুন।
প্রতিকার:
১.শৈাচ করার পর সাবান দিয়ে ভালো করে হাত ধুয়ে ফেলুন।
২. রান্না করার আগে ও পরে এবং ডায়াপার পরিবর্তনের হাত ভালো ভাবে ধুয়ে ফেলুন।
৩. গরম পানি পান করুন। শুধুমাত্র ফোটানো বা বোতলজাত পরিশুদ্ধ পানি পান করুন।
৪. ৬ মাস পর্যন্ত শিশুদেও বুকের দুধ পান করান। শিশু এবং বাচ্চাদের তাদের বয়সের উপযুক্ত খাবার দিন।
৫.আবদ্ধ পরিবেশে কাজ না করা, কাজ করার জায়গায় বাতাস চলাচল করতে পারার ব্যবস্থা গ্রহন করা।
৬. যদি ডায়রিয়া বা বমি শুরু হয় তাহলে তৎক্ষনাত খাবার স্যালাইন খাওয়া শুরু করা এবং চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া।
৭.অতি গরমে তৈলাক্ত ও পঁচা বাসি খাবার গ্রহণ বর্জন করা।
আশা করছি এই তথ্যগুলো আমার বন্ধুদের অনেক কাজে আসবে।

Spread the love

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here